Feni bank robbery half a beggar taka taka taka taka!

There is no other way than the beggary of the skeleton to supply dumatto rice. Therefore, Lutu Mia has chosen begging based on his life for livelihood.
Unidentified miscreants took away Tk 19,000 from the beggar at the hospital’s intersection on Tuesday night.

At around 11:30 pm, unknown hijacked Latu Mia asked to eat Tiger decks, but when the beggar Latu Mia was reluctant to eat tiger, one of the hijackers threatened to slap him. In this opportunity, another kidnapper was robbed of Tk 19,000 in his bag. It is known that many people who are hijacked are in the center of the hospital.

Grade Latu Mia is the son of Ali Azam of Chauddagram upazila of Comilla district. There is no one to call him his wife in Feni. So, in order to survive, he would have collected Tk 19,000 in cash and kept him with him.

Graduate beggar Latu Mia was struggling to lose money on Wednesday.
The incident of hijacking a beggar’s money in such a fancy way is very tragic. Find out the people who are involved in these incidents, and arrange for example exemplary punishment.

দুবেলা দুমুটো ভাতের যোগান দিতে কঙ্কাল সদৃশ্য এই বৃদ্বের ভিক্ষা ছাড়া অন্য কোন উপায় নেই। তাই বাধ্য হয়ে জীবন জীবিকার জন্য ভিক্ষা ভিত্তিকে বেছে নিয়েছেন লাতু মিয়া।
হাসপাতাল মোড়ে মঙ্গলবার রাতে অভিনব কায়দায় ভিক্ষুকের সাড়ে ১৯ হাজার টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায় অজ্ঞাত দুর্বিত্তরা।

রাত সাড়ে ১১টার দিকে অজ্ঞাত ছিনতাই কারী লাতু মিয়াকে টাইগার ডিংকস খেতে বলে , কিন্তু বৃদ্ব ভিক্ষুক লাতু মিয়া টাইগার খেতে অনিহা দেখালে ছিনতাই কারীদের একজন তাকে থাপ্পর মারার ভয় দেখায়। এই সুযোগে অপর ছিনতাই কারী তার ব্যাগে থাকা সাড়ে ১৯ হাজার টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। জানা যায়, ছিনতাই কারীরা হাসপাতাল মোড় এলাকার অনেকেরই চেনামুখ।

বৃদ্ব লাতু মিয়া কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আলি আজ্জাম এর ছেলে। ফেনীতে তার আপনজন বলতে কেউ নেই। তাই দুবেলা দুমুঠো ভাত খেয়ে বেঁচে থাকার জন্য এ বয়সেও তিনি ভিক্ষা করে সাড়ে ১৯ হাজার টাকা জমা করে তার সাথে রেখে দেন।

বৃদ্ব ভিক্ষুক লাতু মিয়া বুধবার দিনভর টাকা হারানোর কষ্টে হা-হুতাশ করতে থাকেন।
এমন অভিনব কায়দায় ভিক্ষুকের টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। এসব ঘটনায় যারা জড়িত তাদের দ্রুত খুঁজে বের করে করে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *